গাংনীতে ধর্ষনের শিকার প্রতিবন্ধীর সন্তানের পিতৃ পরিচয় মিলছেনা

অথর
সময়ের দিগন্ত ডেক্স :   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ৩:৫৬ অপরাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 66 বার
গাংনীতে ধর্ষনের শিকার প্রতিবন্ধীর সন্তানের পিতৃ পরিচয় মিলছেনা

মেহেরপুরের গাংনীতে ধর্ষনের শিকার বাকপ্রতিবন্ধী তাপসীর সন্তানের পিতার পরিচয় মিলছেনা। পিতার পরিচয় সনাক্ত করতে বানারুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তির ডিএ’নএ (ডিঅক্সিরাইবো নিউক্লিক অ্যাসিড) পরীক্ষা করা হলেও তার সাথে মিলছেনা শিশুর পিতৃপরিচয়। এনিয়ে বাক প্রতিবন্ধীর পরিবার চরম বিপাকে পড়েছে। তাপসী খাতুন কাথুলী ইউনিয়নের রাধাগোবিন্দপুর ধলা গ্রামের আনারুল ইসলামের মেয়ে ও বানারুল একই গ্রামের রাহিল উদ্দীনের ছেলে।
তাপসীর মা ফিরোজা খাতুন জানান,তার বাক প্রতিবন্ধী মেয়ে তাপসীকে ধর্ষনের ঘটনায় প্রতিবেশি বানারুলের বিরুদ্ধে গাংনী থানায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং ৮। তাং ০৬.০৮.২০২০ ইং। মামলায় কয়েকমাস জেল থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছে ধর্ষক বানারুল ইসলাম। গত ৬ নভেম্বর রাতে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে তাপসী একটি কন্যা সন্তান প্রসব করলেও বানারুলের সাথে তাপসীর কন্যার ডিএন এ টেস্ট মিল নেই বলে পুলিশ জানিয়েছে। তবে তাপসী বাকপ্রতিবন্ধী হলেও আদালত সহ সকলকে জানিয়েছে বানারুল তাকে ধর্ষন করেছে। বানারুল প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় থাকার কারনে সে মামলা তুলে নেয়া সহ নানা ভাবে হুমকি দিচ্ছে।
বাকপ্রতিবন্ধী তাপসীর নানী আনোয়ারা খাতুন জানান,প্রতিবেশি রহিল উদ্দীনের ছেলে বানারুল তাপসীকে জোর পূর্বক ধর্ষন করে। ধর্ষনের কারনে গর্ভবর্তী হয়ে সন্তান প্রসব করেছে তাপসী। আমরা দরিদ্র মানুষ তিনবেলা আমাদের ভাত জোটেনা। বিচার না পেলে স্ব পরিবারে মৃত্যু ছাড়া কোন পথ নেই তাদের।
তাপসীর মামাতো ভাই মকলেচুর রহমান জানান,মামলা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য বানারুল কতিপয় সমাজপতিদের নিয়ে নানা অপপ্রচার করছে। এদিকে ধর্ষন মামলার আসামী বানারুল ইসলাম দাবি করেছেন তিনি এ ঘটনার সাথে জড়িত নয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সুমন জানান,মামলার আসামী বানারুলের সাথে শিশুর ডিএনও টেস্টে মিল নেই। একারনে তাপসীর সাবেক স্বামীর ডিএনও টেস্ট করা হবে। এছাড়া তাপসী আদালতকে জানিয়েছে বানারুল তাকে ধর্ষন করেছে। তাপসীর সন্তানের সাথে বানারুলের ডিএনও টেস্টে মিল না হলেও ধর্ষনের সাথে বানারুল জড়িত বলে স্থানীয়া জানিয়েছে। মামলা তদন্ত শেষ করতে আরো কিছু সময় লাগবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

20 − twelve =


আরও পড়ুন