দৌলতপুরে ইউপি সদস্যের রাম রাজত্বে অসহায় জণসাধারন

অথর
সময়ের দিগন্ত ডেক্স :   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ৬:২৮ অপরাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 138 বার
দৌলতপুরে ইউপি সদস্যের রাম রাজত্বে অসহায় জণসাধারন

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য শুভরাজ (৩৮) এর রাজত্বে অসহায় জনসাধারন। এলাকাবাসীর কাছে তিনি সুদখোর, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী ও লাঠিয়াল বাহিনীর প্রধান মেম্বার হিসেবে পরিচিত। তার নেতৃত্বে নিজস্ব লাঠিয়াল বাহিনী দ্বারা বিভিন্ন জনের উপর হামলা, মামলা, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও বাড়িঘর ভাঙচুরসহ জোরপূর্বক চাঁদাবাজীর ঘটনা চলে এলাকায় প্রকাশ্যে।
শুভরাজ মেম্বার দৌলতপুর উপজেলার খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। শুভরাজ কামালপুর গ্রামের মৃত করিম মন্ডলের ছেলে।
গত ১৭ ফেব্রুয়ারি (২০২০) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে দিকে কামালপুর বাজারে বাতেনের চায়ের দোকানের সামনে শুভরাজের সন্ত্রাসী ও লাঠিয়াল বাহিনী মিন্টুর উপর হামলা চালায়। মারপিট করে মাথা ফাটিয়ে ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় জখম করে দেয়। এতে মিন্টু গুরুতর আহত হয়ে পড়লে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতলে ভর্তি করে। ঘটনায় মিন্টু বাদী হয়ে ২১ ফেব্রুয়ারি দৌলতপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নম্বর ৩৭।
এই ঘটনায় বাদী মিন্টু উপজেলার খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের কামালপুর গ্রামের মৃত আবু তাহেরের ছেলে। মিন্টু বলেন, কামালপুর বাজারে আমি বসেছিলাম। এমন সময় শুভরাজ মেম্বার ও তার লাঠিয়াল বাহিনী আমার উপর হামলা করে। হামলায় আমাকে বেধড়ক মারপিট করে মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয় এবং শরীরের বিভিন্ন জায়গায় জখম করে দেওয়া হয়।
তিনি আরও বলেন, এই ঘটনায় আমি মামলা করলে তারাও উল্টা আমার নামে মিথ্যা মামলা করে। এখন এই মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে ফাঁসিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে এবং প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি সন্ত্রাসী বাহিনীর ও লাঠিয়াল বাহিনীর প্রধান শুভরাজ মেম্বার ও তার বাহিনীর সকল অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হোক। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য শুভরাজ মেম্বারের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি।
২০১৭ সালে চাঁদাবাজির অভিযোগে আব্দুল মজিদ বাদী হয়ে শুভরাজ মেম্বারের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে, যার মামলা নং ৩২।
২০১৭ সালে নারী নির্যাতনের অভিযোগে কামালপুর গ্রামের এক বিধবা নারী বাদী হয়ে শুভরাজ মেম্বারের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ৩০।
এছাড়াও সাইকেল চুরির অভিযোগে বিশারদ আলী বাদী হয়ে শুভরাজ মেম্বারের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে। যার মামলা নম্বর ৪২।
২০১৯ সালে সন্ত্রাসী বাহিনীর প্রধান শুভরাজ মেম্বার গভীর নলকূপ দখল ও ভাঙচুর করার ঘটনা ঘটায় আটবার। গভীর নলকূপ ভাঙচুর ও দখলের ঘটনায় শুভরাজ মেম্বারের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করে একই এলাকার মিন্টু।
বিভিন্ন চাঁদাবাজির ঘটনায় কামালপুর এলাকার কয়েকজন থানায় লিখিত অভিযোগ করেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
এছাড়াও তিনি নানা অপকর্মের সাথে জড়িত বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। শুভরাজ মেম্বার এবং তার বাহিনীর ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না। কেউ মুখ খুললেই তার দ্বারা নানান অত্যাচারের শিকার হতে হয়। এমনকি তার বাহিনীর হামলা ও মিথ্যা মামলার শিকার হতে হয়।
সরেজমিনে ঘুরে সত্যতা পাওয়া গেছে, শুভরাজ মেম্বারের লাঠিয়াল ও চাঁদাবাজ বাহিনীর অত্যাচারের অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। সাংবাদিকের কাছে একে একে মুখ খোলেন এলাকাবাসী। তার বিরুদ্ধে মুখ খুললে আতঙ্কই থাকতে হয় ভুক্তভোগী পরিবারগুলোকে। ওই এলাকার তিন জন মুক্তিযোদ্ধা, দুইজন বেসরকারি চাকরিজীবী, কয়েকজন কৃষক, শিক্ষক সহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ শুভরাজ মেম্বারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগের কথা বলেছেন। তারা শুভরাজ মেম্বারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান।
দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহুরুল আলম এর মুঠোফোনে একবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × five =


আরও পড়ুন