‘বন্ধন হারানোর পথে বাঙালিয়ান’

অথর
সময়ের দিগন্ত ডেক্স :   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২৩ অক্টোবর ২০২০, ২:৩০ অপরাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 195 বার
‘বন্ধন হারানোর পথে বাঙালিয়ান’

নাহিত হাসান তিতাস : সামাজিকতা আর আত্বীথিয়তায় বরাবরই বাঙালীর সুনাম রয়েছে বিশ্বব্যাপী। ভাষা আন্দোলন থেকে স্বাধীনতা সব ক্ষেত্রেই বাঙালিয়ানদের বন্ধন ছিলো চিরঅটুট। হঠাৎই বাঙালিয়ানদের বন্ধনে কালো মেঘের ঘনঘটা। হারাতে বসেছে আত্বীথিয়তার বন্ধনের সুনাম।

করোনার প্রর্দুভাবের শুরু থেকেই বাঙালিয়ানদের সামাজিকতা ও আত্বীথিয়তার বন্ধনের ভাঙনের বিষয়টি সামনে এসেছে লক্ষনীয়ভাবে। করোনায় মাকে বাড়ি থেকে দূরে ফেলে দিয়েছে সন্তান। মৃত স্বজনদের লাশও গ্রহন করেনি পরিবার। চিরচেনা প্রতিবেশীদের আচরন বদলে গেছে আচমকা। এ যেন এক অচেনা বাঙালিয়ান।

করোনার সাথে আবার নতুন মাত্রা যোগ করেছে ধর্ষণ। সামাজিক বন্ধন কতটা হালকা হলে ঘটতে পারে গণধর্ষনের ঘটনা। বর্তমানে যা প্রতিনিয়তই ঘটছে বাঙালিয়ানদের মধ্যে। ধর্ষণের ঘটনা হীন ও বিকৃত মানসিকতার বহিঃপ্রকাশ। আবার বাঙালিয়ানরা সামাজিক বন্ধনকে ভুলে গিয়ে অন্যকে ফাঁসাতেও ব্যবহার করছে ধর্ষণ তকমা। এ যেনো সুযোগের সৎ ব্যবহার। তবে কি বাঙালিয়ানরা ভুলতে বসেছে তাদের ঐতিহ্যবাহী সেই সুনাম।

ধর্ষণের মতো ন্যাক্যারজনক ঘটনা কখনোই সমর্থনযোগ্য নয়। তবে যারা ধর্ষণকে হাতিয়ার বানিয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে নীল নকশা
বাস্তবায়নে ব্যস্ত, তাদেরকে প্রতিহত করাটাই বর্তমান সময়ের বড় চ্যালেঞ্জ।
যদিও প্রতিটি ক্ষেত্রেই প্রতিটি বির্পযয়েই রাজনৈতিকবীদরা ব্যস্ত থাকে রাজনৈতিক ফাঁয়দা লুটতে। ধর্ষণ একটি সামাজিক বিপর্যয়। বিকৃত মানুষিকতার ফল। আর এটা নিয়ে রাজনীতি করা হীন, লজ্জাকর, অপমানজনক, ক্ষীণ মানষিকতার নিদর্শন। করোনা থেকে ধর্ষণ সব কিছুর মুলেই মূল্যবোধহীন মানষিকতা, যা বাঙালিয়ানদের দীর্ঘদিনের ঐতিহ্যবাহী সুনামে করছে ফাঁটলের সৃষ্টি।

বাঙালিয়ানদের উচিত এখনই বদলে যাওয়া। করোনাকে ভয় নয়, সচেতন থেকে জয় করা, ধর্ষণকে প্রতিহত করা আর ধর্ষণকে পুজি করে প্রতিপক্ষকে ঘায়েলকারীদের শক্ত হস্তে দমন করা। তা না হলে, দীর্ঘদিনের বন্ধন হারাবে বাঙালিয়ানরা। যা বিশ্বের বুকে বাঙালির সুমান কমবে বৈকি বাড়বে না। যা আমার আপনার সহ এ দেশের সকল আপামর জনগোষ্ঠির জন্য চরম বিপর্যয় বয়ে আনতে যথেষ্ঠ।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 − 8 =


আরও পড়ুন