শাহীন-ওয়াহাবের তোপে জয়ে শুরু পাকিস্তানের

অথর
সময়ের দিগন্ত ডেক্স :   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :৩০ অক্টোবর ২০২০, ৪:১৯ অপরাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 45 বার
শাহীন-ওয়াহাবের তোপে জয়ে শুরু পাকিস্তানের

লম্বা সময় ক্রিকেটের বাইরে, এরপরও প্রথম ওয়ানডে খেলতে নেমেই সেঞ্চুরি পেলেন ব্রেন্ডন টেলর। ১১২ রানের চমৎকার এক ইনিংস খেললেন এই উইকেটকিপার। কিন্তু এই ইনিংসটা কোনও কাজেই এলো না! রাওয়ালপিন্ডি স্টেডিয়ামে সব আলো নিজেদের ওপর টেনে নিলেন শাহীন আফ্রিদি ও ওয়াহাব রিয়াজ। এই দুই পেসারের বিধ্বংসী বোলিংয়ে জিম্বাবুয়েকে ২৬ রানে হারিয়ে ঘরের মাঠের ওয়ানডে সিরিজ জয়ে শুরু করেছে পাকিস্তান।

হারিস সোহেল ও ইমাম-উল-হকের হাফসেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তান স্কোরে জমা করে ২৮১ রান। টেলরের সেঞ্চুরিতে জয়ের আশা দেখলেও শাহীন ও ওয়াহাবের দুর্দান্ত বোলিংয়ে তা হয়নি। শাহীন ১০ ওভারে ৪৯ রান খরচায় ৫ উইকেট ও ওয়াহাব ৯.৪ ওভারে ৪১ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নিলে ৪৯.৪ ওভারে জিম্বাবুয়ে অলআউট হয়ে যায় ২৫৫ রানে।

রাওয়ালপিন্ডি স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা পাকিস্তান ভালো শুরু পায় ইমাম ও আবিদ আলীর ব্যাটে। উদ্বোধনী জুটিতে ৪৭ রান যোগ করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন আবিদ (২১)। অধিনায়ক বাবর আজম ভালো শুরু করেও ফেরেন ১ ৯ রান করে। তবে ওপেনিংয়ে নেমে ঠাণ্ডা মাথার ব্যাটিংয়ে দলের রান এগিয়ে নেন ইমাম, সঙ্গী হিসেবে পান চার নম্বরে নামা হারিস সোহেলকে।

হাফসেঞ্চুরি পূরণ করে ৫৮ রানে রানআউট হয়ে ফেরেন ইমাম। ৭৫ বলের ইনিংসটি এই ওপেনার সাজান ৬ বাউন্ডারিতে। হারিস ফিফটি করে সেঞ্চুরির পথে হাঁটছিলেন, যদিও ৭১ রনে থামতে হয় তাকে। তার ৮২ বলের ইনিংসটিতে ছিল ৬ বাউন্ডারির সঙ্গে ২ ছক্কার মার। শেষ দিকে ইমাদ ওয়াসিম ২৬ বলে হার না মানা ৩৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেললে লড়াই করার মতো স্কোর পায় স্বাগতিকরা।

জিম্বাবুয়ের সবচেয়ে সফল বোলার ব্লেসিং মুজারাবানি। এই পেসার ৯ ওভারে ৩৯ রান দিয়ে পেয়েছেন ২ উইকেট। তার মতো ২ উইকেট পেয়েছেন টেন্ডাই চিসোরো।

২৮২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ২৮ রানে দুই ওপেনার ব্রায়ান চারি (২) ও চামু চিবাবাকে (১৩) হারালেও ওই ধাক্কা কাটিয়ে ওঠে জিম্বাবুয়ে টেলর ও ক্রেগ আরভিনের ব্যাটে। আরভিন ৪১ রানে আউট হলেও দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে জয়ের আশা জাগান টেলর। জিম্বাবুয়ের সাবেক অধিনায়ক পূরণ করেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১১তম সেঞ্চুরি। ভালো সঙ্গ পেয়েছেন ওয়েসলি মাদেভেরের কাছ থেকে, মিডল অর্ডারে এই ব্যাটসম্যান ৬১ বলে ৭ বাউন্ডারিতে করেন ৫৫ রান।

তার আউটের খানিক ফিরে যান যান টেলর। ফেরার আগে ১১৬ বলে ১১ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় করেন ১১২ রান, যে ইনিংস তাকে ম্যাচ হারের পরও এনে দিয়েছে ম্যাচসেরার পুরস্কার। টেলরের বিদায়ের পর শেষ হয়ে যায় জিম্বাবুয়ের জয়ের আশা।

শুরুতেই জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনারকে ফিরিয়ে টপ অর্ডার ধসিয়ে দেওয়া শাহীন পরে পেয়েছেন আর ৩ উইকেট। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো ৫ উইকেট পেয়েছেন ৩০ বছর বয়সী পেসার। সমানতালে বোলিং করে ওয়াহাবের শিকার ৪ উইকেট। অন্য উইকেটটি নিয়েছেন ইমাদ ওয়াসিম।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান: ৫০ ওভারে ২৮১/৮ (হারিস সোহেল ৭১, ইমাম ৫৮, ইমাদ ৩৪*, ফাহিম আশরাফ ২৩, আবিদ ২১; চিসোরো ২/৩১, মুজারাবানি ২/৩৯)।

জিম্বাবুয়ে: ৪৯.৪ ওভারে ২৫৫ (টেলর ১১২, মাদেভেরে ৫৫, আরভিন ৪১, চিবাবা ১৩; শাহীন ৫/৪৯, ওয়াহাব ৪/৪১)।

ফল: পাকিস্তান ২৬ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা: ব্রেন্ডর টেলর।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 + six =