১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত : কুষ্টিয়ায় পেট্রোল পাম্পের ধর্মঘট স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২ ডিসেম্বর ২০১৯, ৫:০৭ অপরাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 35 বার
১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত : কুষ্টিয়ায় পেট্রোল পাম্পের ধর্মঘট স্থগিত

সময়েরদিগন্ত.কম ॥ কুষ্টিয়ায় পেট্রোল পাম্পের ধর্মঘট স্থগিত করেছে শ্রমিক ও পেট্রোল পাম্প মালিকেরা। গত ১ ডিসেম্বর থেকে ১৫ দফা দাবীতে কুষ্টিয়ার ২১টি তেল পাম্পে জ্বালানী তেল বিক্রয় বন্ধ রেখেছিলো। গতকাল বাংলাদেশ পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক-লরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ ধর্মঘট স্থগিত করেছে। সেই ধারাতেই কুষ্টিয়ার তেল পাম্পগুলো তাদের ধর্মঘট প্রত্যাহার করে। গতকাল সংগঠনটির একাংশের সভাপতি সাজ্জাদ করিম কাবুল একথা জানিয়েছেন। গতকাল দুপুরে কাওরান বাজারে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) ভবনে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শেষে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়। ঐক্য পরিষদ ও বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের মধ্যকার ওই বৈঠক শেষে জানানো হয়, আগামী ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ধর্মঘট স্থগিত করা হলো। ১৫ দফা দাবি মানা না হলে পুনরায় আন্দোলনে নামবে তারা। এছাড়া আগামী ১৫ ডিসেম্বর আরেকটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। প্রসঙ্গত, রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের সব পেট্রোল পাম্পে রবিবার (১ ডিসেম্বর) সকাল ৬টা থেকে ধর্মঘট শুরু করে ঐক্য পরিষদ। সাজ্জাদুল করিম কাবুল বলেন, ‘১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ধর্মঘট স্থগিত করা হয়েছে। আমরা বিপিসির সঙ্গে সভা করেছি। সভায় তারা আমাদের দাবিগুলো মেনে নিয়েছেন। আগামী ১৫ তারিখ আন্তঃমন্ত্রণালয়ের একটি সভা আছে। সভায় আমাদের দাবিগুলো বাস্তবায়নের বিষয়ে আলোচনা হবে। সেই সভার সিদ্ধান্তের ওপর মূলত নির্ভর করছে আমাদের ধর্মঘট স্থগিতের বিষয়টি। তা না হলে আমরা পরবর্তীতে আমাদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করবো।’ তিনি বলেন, সোমবার থেকে আবারও তেল বিক্রি শুরু হবে। এই ক’দিন ধর্মঘটের কারণে ভোক্তাদের তেল নেওয়ার ক্ষেত্রে যে সাময়িক ভোগান্তি হয়েছে, সেজন্য দুঃখ প্রকাশ করেন তিনি। বিপিসির পরিচালক (কমার্শিয়াল) সৈয়দ মেহেদি হাসান বলেন, তাদের দু’টি দাবি জ্বালানি মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট। বাকি ১৩ দাবি অন্যান্য মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট। তাই তাদের দাবিগুলো নিয়ে আলোচনা করতে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা আগামী ১৫ ডিসেম্বর আহ্বান করা হয়েছে। তিনি বলেন, তাদের প্রধান দাবি কমিশন বাড়ানো। বিষয়টি জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের। আমরা মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছি। দ্রুত সিদ্ধান্ত জানা যাবে। ১৫ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে-জ্বালানি তেল বিক্রির প্রচলিত কমিশন কমপক্ষে সাড়ে সাত শতাংশ প্রদান, জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীরা কমিশন এজেন্ট নাকি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বিষয়টি সুনির্দিষ্টকরণ, প্রিমিয়াম পরিশোধ সাপেক্ষে ট্যাংক-লরি শ্রমিকদের ৫ লাখ টাকা দুর্ঘটনা বিমা প্রদান, ট্যাংক-লরির ভাড়া বৃদ্ধি, পেট্রোল পাম্পের জন্য কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদফতরের লাইসেন্স গ্রহণ বাতিল, পেট্রোল পাম্পের জন্য পরিবেশ অধিদফতরের লাইসেন্স গ্রহণ বাতিল, পেট্রোল পাম্পে অতিরিক্ত পাবলিক টয়লেট এবং জেনারেল স্টোর ও ক্লিনার নিয়োগের বিধান বাতিল, সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃক পেট্রোল পাম্পের প্রবেশদ্বারের ভূমির জন্য ইজারা গ্রহণের প্রথা বাতিল, ট্রেড লাইসেন্স ও বিস্ফোরক লাইসেন্স ছাড়া অন্য দফতর বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক লাইসেন্স গ্রহণের সিদ্ধান্ত বাতিল, বিএসটিআই কর্তৃক আন্ডারগ্রাউন্ড ট্যাংক ৫ বছর অন্তর বাধ্যতামূলক ক্যালিব্রেশনের সিদ্ধান্ত বাতিল, ট্যাংক-লরি চলাচলে পুলিশি হয়রানি বন্ধ, সুনির্দিষ্ট দফতর ছাড়া সরকারি অন্যান্য দাফতরিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ডিলার বা এজেন্টদের হয়রানি বন্ধ, নতুন কোনও পেট্রোল পাম্প নির্মাণের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় জ্বালানি তেল মালিক সমিতির ছাড়পত্রের বিধান চালু, পেট্রোল পাম্পের পাশে যেকোনও স্থাপনা নির্মাণের আগে জেলা প্রশাসকের অনাপত্তি সনদ গ্রহণ বাধ্যতামূলক ও বিভিন্ন জেলায় ট্যাংক-লরি থেকে জোরপূর্বক পৌরসভার চাঁদা গ্রহণ বন্ধ করা।

সংবাদটি শেয়ার করে দৈনিক সময়ের দিগন্তের সাথে থাকুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × three =